শিরোনাম:
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯
---

Newsadvance24
সোমবার ● ২৫ জুলাই ২০২২
প্রথম পাতা » চট্টগ্রাম » কমলনগরে প্রধান শিক্ষকের বিভিন্ন অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদে বিক্ষোভ
প্রথম পাতা » চট্টগ্রাম » কমলনগরে প্রধান শিক্ষকের বিভিন্ন অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদে বিক্ষোভ
৬৩২ বার পঠিত
সোমবার ● ২৫ জুলাই ২০২২
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

কমলনগরে প্রধান শিক্ষকের বিভিন্ন অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদে বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিনিধি, নিউজ এ্যাডভান্স

---

কমলনগর(লক্ষ্মীপুর) : লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে চর জাঙ্গালিয়া এস সি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লকিয়ত উল্যাহর দুর্নীতি,অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদে স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য মো:সবুজের নেতৃত্বে  বিক্ষোভ মিছিল করেছে অভিভাবক ও এলাকাবাসী।

সোমবার (২৫ জুলাই) চর জাঙ্গালিয়া এস সি উচ্চ বিদ্যালয়ের স্কুল প্রাঙ্গনে এই বিক্ষোভ  করা হয়। এ সময় বিক্ষোভকারীরা প্রধান শিক্ষকের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে শ্লোগান দেন। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন।

জানা যায়, ২০২১ সালের ১৫ মে প্রধান শিক্ষক মো: লকিয়ত উল্লাহর চাকরির মেয়াদ শেষ হয় কিন্তু এর পরেও ম্যানেজিং কমিটি তাকে ২ বছরের জন্য ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দেন।দায়িত্ব পাওয়ার পর প্রধান শিক্ষক কারো সাথে পরামর্শ ছাড়াই বিভিন্ন অনিয়ম,দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাছারিতার মাধ্যমে স্কুল পরিচালনা করে আসছেন বলে অভিযোগ করেন বিক্ষোভকারীরা।

সম্প্রতি  লক্ষ্মীপুরের রামগতি-কমলনগর-৪ আসনের এমপি মেজর(অবঃ) আবদুল মান্নান  এমপি সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ সবুজকে  স্কুল ম্যনেজিং কমিটির বিদোৎসাহী সদস্য করার জন্য  ডিও লেটার প্রদান করেন। কিন্তু প্রধান শিক্ষক এমপি’র ডিও লেটারকে গুরুত্ব না দিয়ে নিজের খেয়াল খুশি মতো স্কুল পরিচালনা করে আসছেন বলে অভিযোগ করেন মো: সবুজ।

সবুজ আরো বলেন, প্রধান শিক্ষত লকিয়ত উল্যাহ বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতির সাথে জড়িত।সরকারের নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে নিজের খেয়াল খুশি মতো স্কুল পরিচালনা করে আসছেন। ৷ আমাকে বিদোৎসাহী সদস্য করলে তার বিভিন্ন দুর্নীতি ফাঁস হয়ে যাওয়ারও আশঙ্কা করছে।

এ ব্যপারে প্রধান শিক্ষক মো:লকিয়ত উল্যাহ বলেন, মুল বিষয় হলো সবুজকে বিদোৎসাহী সদস্য নিয়ে। সবুজ মনে করতেছে তাকে সদস্য না করা এটা আমার একক সিদ্ধান্ত। এখানে ম্যানেজিং কমিটির সকল সদস্যের মতামত না থাকায় তাকে আমরা নিতে পারিনি।

কমলনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করা হয়েছে।  তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নিবো





আর্কাইভ